free
hit counter
Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home » নীলফামারীর খবর » ডোমারে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রক্ত পরীক্ষার নামে চাদাঁ আদায়

ডোমারে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রক্ত পরীক্ষার নামে চাদাঁ আদায়

মোসাদ্দেকুর রহমান সাজু, ডোমারঃ

নীলফামারীর ডোমারে রক্ত পরীক্ষার নামে শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে ৫০ টাকা করে চাঁদা আদায় করেছে নয়ানী বাগডোকরা শিমুলতলী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা।

মঙ্গলবার দুপুরে বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের এ চাঁদা আদায়ের ঘটনায় অভিভাবকদের মধ্যে ক্ষােভের সুষ্টি হয় এবং বিষয়টি নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যে কর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে।

“আমরা বিষয়টি জানিনা, শিক্ষকরা এটা করতে পারে না চেয়ারম্যান সাহেবের নিকট থেকে খবর পেয়েছি। আজকে বুধবার ১৯ অক্টোবর প্রধান শিক্ষককে শোকজের চিঠি পাঠিয়েছি। ইউএনও স্যারসহ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে ব্যাপারটি জানানো হচ্ছে। তাছাড়া প্রতিটি বাচ্চাকে আলাদা সিরিঞ্জ দিয়ে টিকা দেওয়ার নিয়ম,সেটা সহ বাচ্চাদের এগুলি করতে অনেক নিয়ম মানতে হয় বলে জানান ডোমার উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আমীর হোসেন।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, উপজেলার ৭নং বোড়াগাড়ী ইউনিয়নের নয়ানী বাগডোকরা শিমুলতলী এলাকায় অবস্থিত নয়ানী বাগডোকরা শিমুলতলী নামে একটি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। এ বিদ্যালয়ে মোট শিক্ষার্থী একশত তিন জন, এবং শিক্ষকের সংখ্যা প্রধান শিক্ষকসহ চারজন।

একটি বেসরকারি ক্লিনিকের মেডিক্যাল টেকনোলজিষ্ট নয়ন চদ্র রায়(৩০) ও সাবেক কালেকশন কর্মী মনোরঞ্জন রায় (২৮) শিক্ষার্থীদের রক্ত পরীক্ষা করছেন । অপরদিক ৫০ টাকা করে চাঁদা তুলছেন স্কুলের শিক্ষকেরা। পাশাপাশি জমা নিচ্ছেন বাবা-মার আইডি কার্ড ও শিক্ষার্থীদের জম্ম নিবন্ধন কার্ডের ফটোকপি, অনেক অভিভাবক চাঁদা আদায়ের এ ঘটনাকে মেনে নিলেও কিছু কিছু অভিভাবক বিষয়টির প্রতিবাদ করেন এবং খবর দেন সাংবাদিকদের । সাংবাদিক আসার খবর পেয়ে বেসরকারি ক্লিনিকের কর্মী মনোরঞ্জন রায় পালিয়ে গেলেও আটকা পড়েন নয়ন চদ্র রায় ।

এলাকাবাসী জানায়,প্রধান শিক্ষক শুধু আজকে নয় তার বিরুদ্ধে দূর্নীতির অনেক অভিযোগ রয়েছে, বিদ্যালয় মেরামতের নামে এখানে হরিলুট কান্ড হয়েছে, তার উপর বিদ্যালয়ের পুরাতন দরজা জানালাগুলো সরকারি ভাবে নিলাম না করে তিনি তার খেয়াল খুশিমতো এসব মালামাল বিক্রয় করে দিয়েছেন। তারপর শ্লিপের টাকার কোন মালামাল না কিনে নিজেই টাকাগুলো পকেটস্থ করেছেন। তাই আমাদের এলাকাবাসীর দাবি অচিরেই এইসব দূর্নীতিবাজ শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে উপযুক্ত শাস্তি প্রদানের ব্যবস্থা করবেন উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ বলে আমরা এলাকাবাসী আশাবাদী। তাহলে আর কোন শিক্ষক সরকারি বরাদ্দের টাকা নিজের টাকা মনে করে পকেটস্থ করতে পারবেন না।


এবিষয়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আরমান (৭)জিনিয়া(৭) এদের অভিভাবক রাজা মিঞা (৫৬) বলেন, নাতী – নাতনি এসে বলছে বাবা-মার আইডি কার্ডের ও আমার জন্মনিবন্ধনের ফটোকপি জমা দিতে হবে এবং সেই সাথে আরও ৫০ টাকা করে চাঁদা দিত হবে ,তাহলেই রক্ত পরীক্ষা করবে তারা।

শুভ রায়(১১) এর অভিভাবক মহান রায় (৪০) বলেন, বাচ্চারা বলেছে ,রক্ত পরীক্ষার জন্য ৫০ টাকা লাগবে আমি টাকা নিয়ে এসে দেখি বিদ্যালয়ে গন্ডগোল হচ্ছে ।

পঞ্চম শ্রেনীর আরেক ছাত্র উজ্জল ইসলাম (১২) বলেন ,বাবা- মার জাতীয় পরিচয় পত্র ও আমার জন্মনিবন্ধনে ফটোকপি জমা দিতে বলেছে সেইসাথে রক্ত পরীক্ষার জন্য ৫০ টাকা ।

বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকরা জানান, কমিটি ও প্রধান শিক্ষকের নির্দেশনায় টাকা তোলা হয়েছে।
বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সদস্য চম্পা রানী জানান,কমিটি গঠনর পর থেকে এখন পর্যন্ত কোন মিটিং হয়নি ,আমি কোথাও স্বাক্ষরও দেইনি ।

বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক আব্দুল মানান জানান,কমিটির সদস্যদের নিয়ে মিটিংয়ের মাধ্যমে আলোচনা হয়েছে এবং কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সব কাজ করা হয়েছে। ইউনিক আইডির ছবি ও ব্লাড গ্রুপ নির্ণয়ের জন্য টাকা নেওয়া হচ্ছ।
এবিষয়ে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সুশীল রায় জানান,এখানে যে ক্যাম্প করে টাকা আদায় করা হচ্ছে,তা আমি জানি না।

এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ রমিজ আলম জানান, শিক্ষা অফিসারকে শোকজ দিতে বলা হয়েছে ,কিভাবে এটা তারা এটা করলো।

 

Check Also

ডোমারে এ.এন. ফাউন্ডেশনের মেধা মূল্যায়ন পরিক্ষা ও পুরস্কার বিতরন অনুষ্ঠিত

  ডোমার (নীলফামারী) থেকেঃ নীলফামারীর ডোমারে অলাভজনক প্রতিষ্ঠান এ.এন. ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেনীর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *