free
hit counter
Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home » নীলফামারীর খবর » আসন্ন জেলা পরিষদের সদস্য পদের নির্বাচনে প্রচারণার শীর্ষে ডন

আসন্ন জেলা পরিষদের সদস্য পদের নির্বাচনে প্রচারণার শীর্ষে ডন

মোসাদ্দেকুর রহমান সাজু, ডোমারঃ

আসন্ন ১৭ অক্টোবর নীলফামারী জেলা প্রশাসক সাধারণ সদস্য এবং সংরক্ষিত নারী সদস্য পদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

সাধারণ সদস্য পদে ২নং ওয়ার্ড ডোমার উপজেলায় ৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন এরই মধ্যে সকল ইউপি চেয়ারম্যান এবং ইউপি সদস্যদের মনে স্থান করে নিয়ে প্রচার প্রচারণার শীর্ষে অবস্থান করছেন রাজপথের সাহসী ছাত্রনেতা জনদরদী মেহনতী মানুষের বন্ধু, মুজিব আদর্শের সৈনিক এবং ৭নং বোড়াগাড়ী ইউনিয়ন আ”লীগের সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুর আহমেদ ডন।

সরেজমিনে বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যদের সাথে কথা বলে এবং ইউনিয়ন ঘুরে দেখা গেছে উপজেলার দশটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্য এবং সংরক্ষিত নারী সদস্যদের মুখে একটাই কথা সেটা হচ্ছে তরুণ প্রজন্মের অহংকার সকলের আস্থাভাজন তারুণ্যের প্রতীক এবং সকলের প্রিয়মুখ মঞ্জুর আহমেদ ডনের নাম। তারা বলছেন অতিতে অনেককেই দেখেছি তারা নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে নিজেদেরকে নিয়ে ব্যস্ত থাকে, তখন আর আমাদের কথা শুনার আর তাদের সময় থাকেনা। প্রতিটি ইউনিয়নের হাটে বাজারে রাস্তা ঘাটে বিভিন্ন চায়ের দোকানে এবারের নির্বাচনে সাধারণ সদস্য পদে মঞ্জুর আহমেদ ডনের নাম প্রকাশ পাচ্ছে।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক দশটি ইউনিয়ন এবং একটি পৌরসভার একাধিক সদস্যরা বলছেন এবার আমরা সাধারণ সদস্য পদে প্রার্থী হিসেবে প্রোপারের প্রার্থীকেই জয়লাভ করাবো, তাহলে আমরা আমাদের দাবী দাওয়া ঠিক মত আদায় করতে পারবো।
ডোমার উপজেলা ২নং ওয়ার্ড থেকে এবারের জেলা পরিষদ নির্বাচনে সাধারণ সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন ৩ জন। এদের মধ্যে সাবেক জেলা পরিষদের সাধারণ সদস্য ২ জন মিজানুর রহমান এবং আতাউর রহমান সাজু এবং তারুণ্যের প্রতীক মঞ্জুর আহমেদ ডন। এই তিন জনের মধ্যে বর্তমানে হেবীওয়েড প্রার্থী হিসেবে মঞ্জুর আহমেদ ডনের নাম মাঠে ঘাটে শুনা যাচ্ছে।এই নির্বাচনকে ঘিরে সকল প্রার্থীরা তাদের নিজ নিজ প্রচার প্রচারণার পাশাপাশি বিভিন্ন সভা সমাবেশ করে ব্যস্ত সময় পার করছেন।

এবিষয়ে জেলা পরিষদের নির্বাচনে সাধারণ সদস্য পদে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মঞ্জুর আহমেদ ডন প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, আমার নির্বাচিত হওয়ার প্রধান ও প্রথম লক্ষ হবে দলমত নির্বিশেষে ডোমারকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া ও ডোমারের হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্য কে ফিরিয়ে আনা। এতদিন জেলা পরিষদ এর বরাদ্দ নিয়ে যে ছিনিমিনি খেলা হয়েছে এমনকি মসজিদ মন্দিরে বরাদ্দের প্রতিটা প্রকল্পের মধ্যে যে কমিশন সিস্টেম ছিল এসব অপকৃত্তি ও কালচার থেকে বেড়িয়ে এসে প্রত্যেক ইউপি চেয়ারম্যান মেয়র কাউন্সিলর ইউপি সদস্যসহ সকল সংরক্ষিত নারী সদস্য এবং এলাকার ময় মুরুব্বিবৃদ্ধকে নিয়ে নিয়মিত মিটিং করে এলাকা ও সাধারণ মানুষের চাহিদা প্রয়োজনীয়তা অগ্রাধীকারের ভিত্তিতে প্রত্যেক এলাকায় সুষম বন্টন নিশ্চিত করা। আর এই সুষম বন্টন নিশ্চিত করার পাশাপাশি নীতি নৈতিকতার সাথে দায়িত্বে পালন করতে গিয়ে যদি আমাকে ব্যক্তিগত ও অর্থনৈতিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে নিজের বাবার কষ্টে অর্জিত আমাকে দেওয়া সম্পদ বিক্রি করেও যদি আমার নিজের জীবন ও জীবিকা নির্বাহ করতে হয় তবুও আমি আমার উদ্দেশ্য ও লক্ষ থেকে একবিন্দু পরিমাণ সরে আসা বা কারো সাথে এ ব্যপারে কোনো আপোষ করবনা-ইনশাআল্লাহ।পরিশেষে তিনি সকলের মঙ্গল ও সুস্বাস্থ্য কামনা করার পাশাপাশি আগামী ১৭ অক্টোবর নির্বাচনে সকলের নিকট দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেন।

উল্লেখ্য যে, আগামী ১৭ অক্টোবর নির্বাচনে উপজেলার দশটি ইউনিয়ন এবং একটি পৌরসভার মেয়র, কাউন্সিলর,ইউপি চেয়ারম্যান এবং ইউপি সদস্য এবং সংরক্ষিত আসনের নারী সদস্যরা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

Check Also

ডোমারে এ.এন. ফাউন্ডেশনের মেধা মূল্যায়ন পরিক্ষা ও পুরস্কার বিতরন অনুষ্ঠিত

  ডোমার (নীলফামারী) থেকেঃ নীলফামারীর ডোমারে অলাভজনক প্রতিষ্ঠান এ.এন. ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেনীর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *