free
hit counter
Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home » নীলফামারীর খবর » তিস্তা নদী থেকে বোমা মেশিন দিয়ে বালু ও পাথর উত্তোলন

তিস্তা নদী থেকে বোমা মেশিন দিয়ে বালু ও পাথর উত্তোলন

মোঃ হাবিবুল হাসান হাবিব, ডিমলা প্রতিনিধিঃ
নীলফামারীর ডিমলায় উচ্চ আদালতের নির্দেশনা উপেক্ষা করে প্রশাসনের নাম ভাঙ্গিয়ে তিস্তা নদী থেকে বোমা মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে বালু ও পাথর উত্তোলন করার অভিযোগ উঠেছে শার্প (স্ব-সহায়তা এবং পুনর্বাসন কর্মসূচি) নামে একটি বেসরকারি এনজিওর বিরুদ্ধে।

তবে এনজিওটির প্রধান কার্যালয়ের সহকারী মানব সম্পদ ব্যবস্থাপক জাভেদ আহমেদ জানান, জলবায়ু পরিবর্তন প্রকল্পের আওতায় বসতভিটা উঁচু করনের নিমিত্তে মেশিন দিয়ে তিস্তা নদী থেকে বালু উত্তোলনের জন্য লিখিত আবেদন করেছি, এখনও অনুমতি পাইনি। তিস্তা নদীর অব্যাহত ভাঙনে নদীর তীরবর্তী উপজেলার পূর্ব ও পশ্চিম ছাতনাই ইউনিয়নের হাজার হাজার একর ফসলি জমি ও বাড়িঘর ইতোমধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

ভাঙনের মুখে রয়েছে কালিগঞ্জ বেড়িবাঁধসহ আশপাশের ৬ টি ইউনিয়নের ফসলি জমি, জনবসতি ও স্থাপনা। নদীর দুইপারে গ্রাম রক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ড কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে বেড়িবাধ ও বক্ল স্থাপন করে ভাঙন প্রতিরোধের চেষ্টা করছে। বালু উত্তোলনের কারণে নদীর গভীরতা সৃষ্টি হয়ে তীরবর্তী বাড়িঘর, ফসলি জমি ভাঙন ও পরিবেশ বিপর্যয়ের মারাত্মক আশঙ্কা রয়েছে।এ নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে চরম অসন্তোষ দেখা দিয়েছে।

সরজমিনে দেখা যায়, বসত ভিটা উঁচু করনের নামে ও প্রশাসনের নাম ভাঙ্গিয়ে এনজিওটি কালিগঞ্জ জিরো পয়েন্ট এলাকায় তিস্তা নদীতে ১০ থেকে ১২টি বোমা মেশিন বসিয়ে বালু ও পাথর উত্তোলন করছে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, রাতের আধারে লাখ লাখ টাকায় বিক্রি হচ্ছে এসব বালু-পাথর। নদীর গভীরতা সৃষ্টি করে বালু-পাথর উত্তোলনের বিরূপ প্রতিক্রিয়া হওয়ার আশুসম্ভাবনা রহিয়াছে। বালু-পাথর উত্তোলন বন্ধের ব্যাপারে সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করে পূর্ব ছাতনাই ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুস সাত্তার সরকার বুলুসহ এলাকাবাসী বলেন, অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ না হলে নদী তীরবর্তী বাড়িঘর, ফসলি জমি ভাঙন ও পরিবেশ বিপর্যয় দেখা দেয়ার আশঙ্কা রয়েছে। মানুষের দুঃখ-দুর্দশার কথা চিন্তা না করে ব্যক্তি মুনাফার জন্য পরিবেশ নষ্ট করে জনগণের মুখের গ্রাস ও বসতবাড়ি ধ্বংসের লীলায় মেতে উঠেছেন শার্প এনজিওর যোগসাজশে একটি প্রভাবশালী মহল।

এ ব্যাপারে শার্প এনজিওর টুনিরহাট শাখার ইঞ্জিনিয়ার সৌধন্য দোলন বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন প্রকল্পের আওতায় বসতভিটা উঁচু করনের কাজের স্বার্থে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। তবে আমরা ৪টি মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করছি। অবশিষ্ট মেশিনের দায়ভার আমাদের নয়। বিষয়টি প্রশাসন ও স্থানীয় চেয়ারম্যানসহ সবাইকে অবগত করা আছে। মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনের লিখিত অনুমতি আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, অবশ্যই লিখিত অনুমতি আছে । জেলা প্রশাসক ও ইউএনওকে বলেন তারাই বলে দিবেন।

তবে বিষয়টি অস্বীকার করে শার্প টুনিরহাট শাখা তত্বাবধায়ক মামনুর রশিদ জানান, বালু উত্তোলনের দায়ভার আমাদের নয়। আমরা শুধু টাকা দিচ্ছি।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বেলায়েত হোসেন বলেন, তিনি কাউকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের অনুমতি দেননি। খোঁজখবর নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Check Also

ডোমারে এ.এন. ফাউন্ডেশনের মেধা মূল্যায়ন পরিক্ষা ও পুরস্কার বিতরন অনুষ্ঠিত

  ডোমার (নীলফামারী) থেকেঃ নীলফামারীর ডোমারে অলাভজনক প্রতিষ্ঠান এ.এন. ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেনীর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *