free
hit counter
Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home » নীলফামারীর খবর » ডিমলায় শিক্ষা কর্মকর্তার প্রকাশ্যে ঘুষ নেওয়ার ভিডিও ফাঁস

ডিমলায় শিক্ষা কর্মকর্তার প্রকাশ্যে ঘুষ নেওয়ার ভিডিও ফাঁস

মোঃ হাবিবুল হাসান হাবিব, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ নীলফামারীর ডিমলায় শিক্ষা কর্মকর্তা নুর মোহাম্মদ এর ঘুষ নেওয়ার ভিডিও দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ হয়েছে। তিনি নিজ অফিসে বসেই শিক্ষকদের সঙ্গে দর-কষাকষি করে প্রকাশ্যে ঘুষ নেন। এরপর ঘুষের টাকা গুনে গুনে হাসতে হাসতে নিজের প্যান্টের পকেটে রাখনে।

জানা যায়, শিক্ষা কর্মকর্তা সরাসরি প্রধান শিক্ষকদের মোবাইলে ফোন করে নিজ অফিসে ডেকে ঘুষের এসব টাকা নেন। তার প্রকাশ্যে ঘুষ গ্রহণের একটি ভিডিও সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ায় উপজেলায় গুজ্জন সৃষ্টি হয়েছে।

উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্র ও বিভিন্ন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকেরা অভিযোগ করেছেন, উপজেলার ৮৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতি মেরামতে বরাদ্দ এসেছে দুই লাখ টাকা করে। ৯৯টি বিদ্যালয় পেয়েছে রুটিন মেইনটেন্যান্স বাবদ ৪০ হাজার টাকা । ২১৭ প্রাথমিক বিদ্যালয় স্লিপ বাবদ পেয়েছে ৪০ হাজার টাকা। বরাদ্দের টাকা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার হিসাব নম্বরে আসার তিন দিনের মধ্যে সব বিদ্যালয়ের হিসাব নম্বরে স্থানান্তরের সরকারি নির্দেশ রয়েছে। এসব টাকা ৩০ জুনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের হিসাব নম্বরে পাঠানোর কথা ছিল। বিদ্যালয়ের হিসাব নম্বর পরিচালিত হয় প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির যৌথ স্বাক্ষরে কিন্তু ডিমলা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নুর মোহাম্মদ সরকারি নিয়ম নীতি তোয়াক্কা না করে ৩০ জুনের মধ্যে একটি বিদ্যালয়ের টাকাও ছাড় করেননি। ওসব টাকা নিজের অ্যাকাউন্টে রেখেছেন তিনি।
টাকা নিজের অ্যাকাউন্টে নেওয়ার পর প্রধান শিক্ষকদের খবর দিয়েছেন টাকা তুলে নেওয়ার জন্য তবে এ ক্ষেত্রে তিনি শর্তদেন, মেরামত কাজের জন্য ৮৮টি বিদ্যালয়কে ১২ থেকে ২০ হাজার টাকা করে দিতে হবে। পাশাপাশি স্লিপের টাকার চেকের জন্য বিদ্যালয় প্রতি ৫ হাজার, রুটিন মেইনটেন্যান্স চেক প্রাপ্তির জন্য বিদ্যালয় প্রতি ৬ হাজার করে টাকা দিতে হবে। সে অনুযায়ী উপজেলার ২১৭ টি প্রাথমিক স্কুল থেকে মোট ২০ লাখ টাকা উৎকোচ নিয়েছেন শিক্ষা কর্মকর্তা নুর মোহাম্মদ ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন প্রধান শিক্ষক বলেন, যেসব বিদ্যালয় ঘুষ দিতে অস্বীকার করছে, তাদের টাকা আটকে রাখেন শিক্ষা কর্মকর্তা নুর মোহাম্মদ। ঘুষ ছাড়া বিল তো দূরের কথা, একটা কাগজও সই করেন না তিনি।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চালে শিক্ষা কর্মকর্তা নুর মোহাম্মদ গনমাধ্যমকর্মীদের বলেন, ‘ট্রেজারি ও অডিট শাখায় কিছু টাকা দেওয়ার লাগে। হিসাবরক্ষণ অফিস আর অডিট কর্মকর্তাকে ঘুষ দিতে শিক্ষকদের কাছ থেকে ঘুষ নেওয়া হয়েছে। ঘুষ লেনদেন অনেক আগে থেকেই চলমান। আমি হুট করে কি এটাকে বন্ধ করতে পারি ? বিভিন্ন খাতে ঘুষ দিতে হয়, এ টাকা কি আমি আমার বেতন থেকে দেব ?

জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নবেজ উদ্দিন সরকার গনমাধ্যমকর্মীদের বলেন, শিক্ষা কর্মকর্তার ঘুষ গ্রহণের প্রমাণ পাওয়া গেছে। তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে।

Check Also

ডোমারে এ.এন. ফাউন্ডেশনের মেধা মূল্যায়ন পরিক্ষা ও পুরস্কার বিতরন অনুষ্ঠিত

  ডোমার (নীলফামারী) থেকেঃ নীলফামারীর ডোমারে অলাভজনক প্রতিষ্ঠান এ.এন. ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেনীর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *