free
hit counter
Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home » নীলফামারীর খবর » ডিমলায়  বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত বোরো ধানক্ষেত, দিশেহারা কৃষক

ডিমলায়  বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত বোরো ধানক্ষেত, দিশেহারা কৃষক

মোঃ হাবিবুল হাসান হাবিব, ডিমলা প্রতিনিধি:-
নীলফামারীর ডিমলায় ছত্রাকজনিত ব্লাস্ট,বিএলবি,বিপিএইচ রোগে আক্রান্ত কৃষকের রোপনকৃত চলতি মৌসুমে বিভিন্ন জাতের বোরো ধানের বিস্তিন্ন ক্ষেত।
উপজেলার দশটি ইউনিয়নে  রবিবার (৩০ এপ্রিল) সকালে সরে জমিনে দেখা যায় এই সকল রোগে আক্রান্ত কৃষকের সবুজ ধান ক্ষেত। কৃষকের আবাদী জমির রোপনকৃত বোরো ধানের পাতা হলুদ বর্ণ হয়ে শুকিয়ে যাচ্ছে, শীষ বের হওয়ার সময়ে ধান গাছে বিভিন্ন পোকার আক্রমন ও স্বপ্নের হাড় ভাঙ্গা ফসল এভাবে  চোখের সামনে নষ্ট হতে দেখে কৃষকেরা নির্বাক । বোরো ধানে ব্লাস্ট, বিএলবি, বিপিএইচ রোগের আক্রমণ, অন্যদিকে প্রাকৃতিক ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে ফসলের ক্ষতি এমন পরিস্থিতিতে লোকসানের বোঝা নিয়ে দুশ্চিন্তায় এ উপজেলার কৃষকরা উপজেলার  ডিমলা সদর ইউনিয়নসহ বালাপাড়া,খগাখড়িবাড়ি,পশ্চিম ছাতনাই, ছাতনাই,নাউতারা,গয়াবাড়ী,টেপাখড়িবাড়ি,খালিশা চাপানী ও ঝুনাগাছ চাপানী ইউনিয়নের সর্বত্র এলাকায়  চলতি বোরো মৌসুমে বিভিন্ন ধরনের রোগ দ্রুত  ছড়িয়ে পড়েছে ধান ক্ষেতে।
স্থানীয় কৃষকেরা চারা রোপনের পর থেকে বোরো ধানের পরিচর্যা করে আসলেও শীষ বের হওয়ার সময় ধান গাছে হঠাৎ করে হলুদ বর্ণ ধারণ করে গাছ শুকিয়ে যাচ্ছে । কৃষকেরা যখন এধরনের রোগ সম্পের্ক হতাশ তখন ব্লাস্ট,বিএলবি,বিপিএইচ রোগ বলে চিহ্নিত করেছে কৃষি বিভাগ।
বিভিন্ন এলাকার কৃষকরা জানান, ধানের গাছে আগে তেমন কোন রোগের প্রাদূভাব দেখা না গেলেও শীষ বের হওয়ার পর বিভিন্ন রোগের লক্ষন দেখা যায়। ধানের রোগ দমনে তেমন কোনও উদ্যোগ নেই কৃষি বিভাগের। মাঠপর্যায়ে থাকা কৃষি বিভাগের দু-একজনের কাছে পরামর্শ নিয়ে ছত্রাক জাতীয় ওষুধ প্রয়োগ করেও কোনও সমাধান পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ করেছেন কৃষকরা।
এছাড়া কয়েক দফায় শিলাবৃষ্টিতে ধানের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। যে টুকু অবশিষ্ট থাকবে সেটুকু প্রাকৃতিক দূর্যোগের কারণে জমিতেই পাকা ধান ঝড়ে পড়ার আশঙ্কা। এভাবে রোগ বিস্তার আর প্রাকৃতিক দুর্যোগ ফসলের উৎপাদনে ব্যহত আর ক্ষতি হলে কিভাবে বঁচবে কৃষকরা।  ধানের উৎপাদন নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন চাষিরা। মধ্যম সুন্দর খাতা  গ্রামের কৃষক আব্দুল হামিদ জানান, একদিকে ধানের জমিতে বিভিন্ন ধরনের রোগ অন্যদিকে ঝড়-শিলাবৃষ্টির ফলে চাষাবাদ করা দুঃসাধ্য। আট বিঘা জমিতে তিনি বীজ, সার, লেবার, হাল,  সেচ, কীটনাশক ব্যবহার করে যে  ব্যয় করেছেন ধান কর্তন করে উঠা তো দূরের কথা, আসল নিয়ে সংশয় আছি।
তিনি আরো বলেন, কৃষি বিষয়ে পরামর্শ দিতে দায়িত্বপ্রাপ্ত উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তারা  এলাকায়  আসলেও তারা সরে জমিনে জমির ক্ষেতে না গিয়ে মোটরসাইকেলে এসে এলাকায় রাস্তায় বিভিন্ন মোড়ে দোকানের সামনে দাড়িয়ে কৃষকদের পরামর্শ ও রোগ সম্পের্ক লিফলেট বিতরন করে। কৃষক আবুল কালাম জানান, ব্লকের বিএস রাস্তায় বা রাস্তার মোড়ে দোকানে যার দেখা পায় তার সাথে আলাপ আলোচনা করে চলে যায়। আমাদের এলাকার কৃষকেরা অনেকই তাদেরকে চিনেনা। কৃষক কদ্দে আলী জানান, কৃষি অফিস হতে প্রনোদনার ধানের বীজ পেয়েছি ।  জমি থেকে আলু তুলে সেই জমিতে ধান রোপন করেছি। বর্তমানে  বিভিন্ন ধরনের রোগ ধান ক্ষেতে। এপর্যন্ত কৃষি অফিস হতে কোন অফিসারকে দেখলাম না আমার কাছে আসতে।  কৃষক শাহজাহান  আলী  বলেন, নিজের জমিতে বোরো ধান রোপন করেছি ধানের শীষ বের হয়েছে হঠাৎ পোকার আক্রমন। কৃষি বিষয়ে পরামর্শ বা সহযোগিতা  তো দুরে থাক, এই এলাকার দায়িত্বপ্রাপ্ত উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা বা সংশ্লিষ্ট কাউকেই আমি এখন পর্যন্ত দেখেনি।
কৃষক পাষান, মাসু, আমিনুর, এমরান, করিম, এসলাম, হানিফ, হেলাল জানান ধার-দেনা করে বোরো ধান আবাদ করেছি।  বর্তমানে বোরো ধানের এমন পরিস্থিতিতে উপজেলা কৃষি অফিস হতে কোন প্রকার পরামর্শ  না পেয়ে আমরা হতাশ হয়ে  বাজারে কীটনাশক ও সারের দোকানিদের পরামর্শ নিয়ে  ঔষুধ ক্রয় করে জমিতে স্প্রে করি  ফলে জমিতে কখন কোন ওষুধ দিতে হয়, তা আমাদের অজানা। বাজারে বিভিন্ন জাতের ধানের জাতগুলোর মনোরম প্যাকেটজাত করে কৃষকদের হাতে তুলে দিচ্ছে ব্যবসায়ীরা, কৃষকরা জমিতে রোপন করে প্রতিবছর লোকসানে পড়ছে । কোনটা আমদানি আর কোনটা দেশীয় প্যাকেটজাত তা কৃষকদের অজানা।  এভাবে কৃষদের ঠকানো হচ্ছে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সেকেন্দার আলী জানান, বোরো ধানে বিএলবি নামে ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ হয়েছে এ রোগ নির্মূলে তেমন কোন কার্যকরী কীটনাশক নেই। তবে ধানের তেমন ক্ষতি হবে না।  উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তারা মাঠ পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিচ্ছেন।

Check Also

ডোমারে এ.এন. ফাউন্ডেশনের মেধা মূল্যায়ন পরিক্ষা ও পুরস্কার বিতরন অনুষ্ঠিত

  ডোমার (নীলফামারী) থেকেঃ নীলফামারীর ডোমারে অলাভজনক প্রতিষ্ঠান এ.এন. ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেনীর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *